কার্টুন - বিপ্রতীক২৪.কম।
আনন্দধারা সংবাদ শিরোনাম সাংস্কৃতিক বার্তা

আজ থেকে শুরু হচ্ছে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বুধবার বিকেল ৩টায় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’র পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। আয়োজক বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শাসমুজ্জামান খান জানান, আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনে সাতটি দেশের ২৭ জন কবি-সাহিত্যিক-বুদ্ধিজীবী-প্রাবন্ধিক অংশগ্রহণ করবেন। অংশগ্রহণকারী কবি-সাহিত্যিকরা আসবেন রাশিয়া, চীন, অস্ট্রিয়া, জার্মানি, পুয়ের্তোরিকো, সুইডেন ও ভারত থেকে।


মহাপরিচালক বলেন, শুধু পশ্চিমবঙ্গ থেকেই আসবেন ১৮ জন কবি ও কথাসাহিত্যিক। তাদের মধ্যে শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় ও অধ্যাপক পবিত্র সরকারসহ বেশ কয়েকজন খ্যাতিমান কবি-সাহিত্যিকের আসার কথা রয়েছে। এছাড়া জার্মানির দুজন, অস্ট্রিয়ার একজন, চীনের দুজন, রাশিয়ার একজন, পুয়ের্তোরিকোর দুজন ও সুইডেনের একজন করে কবি-সাহিত্যিক-বুদ্ধিজীবী সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। ভারত ছাড়া অন্যান্য দেশের উল্লেখযোগ্য কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে অস্ট্রিয়া থেকে মেনফ্রেড কোবো, জার্মানি থেকে ইকনো বুরঘার্ট ও টোরিয়াস বুরঘার্ট, পুয়ের্তোরিকো থেকে মারিয়া ডি লোস অ্যানজেলেস কামাকো নিভাস ও লুস মারিয়া লোপেজ, রাশিয়া থেকে ড. ভিক্টর আলেক্সান্ড্রোভিচ, চীন থেকে প্রফেসর ডং ইউ চেন ও ইয়াং উয়ি মিন স্বর্ণা এবং সুইডেন থেকেও একজন রয়েছেন। তারা সবাই নিজ দেশের খ্যাতিমান কবি, কথাসাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক ও বুদ্ধিজীবী। এ ছাড়া বাংলাদেশের খ্যাতিমান কবি-সাহিত্যিকরাও সম্মেলনে অংশ নেবেন বলে তিনি জানান।
একাডেমির মহাপরিচালক বলেন, অমর একুশে গ্রন্থমেলা ও আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সম্মানিত বিদেশি অতিথি হিসেবে মঞ্চে চীনের প্রখ্যাত গবেষক ও রবীন্দ্র অনুবাদক ডং ইউ চেন, অস্ট্রিয়ার মেনফ্রেড কোবো, পুয়ের্তোরিকোর লুস মারিয়া লোপেজ ও ভারতের চিন্ময় গুহ উপস্থিত থাকবেন। তাদের মধ্যে চীনা গবেষক ডং ইউ চেন বাংলায় বক্তৃতা করবেন। তিনি জানান, আন্তর্জাতিক এ সাহিত্য সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে দেশের ছয়জন বিশিষ্ট লেখক-বুদ্ধিজীবীকে ‘আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন লেখক সম্মাননা ২০১৭’ প্রদান করা হবে। তাঁরা হচ্ছেন- জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, রবীন্দ্র-গবেষক আহমদ রফিক, ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।
চারদিনব্যাপী এ সাহিত্য সম্মেলনে ১৬টি অধিবেশন রয়েছে উল্লেখ করে মহাপরিচালক বলেন, সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন সকালে সাহিত্য সম্মাননা প্রদান, বিদেশি কবিদের কবিতা পাঠানুষ্ঠান ও দেশী-বিদেশি কবি-সাহিত্যিকদের আলাপচারিতানুষ্ঠান। বিকেল ৩টায় কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের সভাপতিত্বে কথাসাহিত্য নিয়ে সেমিনার ও সন্ধ্যায় কবিতা পাঠানুষ্ঠান থাকবে।
সম্মেলনের তৃতীয় দিন সকাল ১০টায় কবিতা সাহিত্য নিয়ে সেমিনার থাকবে। এতে দুই বাংলা থেকে দু’টি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হবে। কবি আসাদ চৌধুরী এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করবেন। এদিন বিকাল ৩টায় প্রবন্ধ সাহিত্য নিয়েও একটি সেমিনার হবে। অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সভাপতিত্ব করবেন। এছাড়া তৃতীয় দিন গবেষণা প্রবন্ধ, মুক্তিযুদ্ধ সাহিত্য ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা সাহিত্য নিয়ে পৃথক আরো তিনটি অনুষ্ঠানের আয়োজন রাখা হয়েছে।
আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের চতুর্থ দিন অর্থাৎ সমাপনী দিনের কর্মসূচী উল্লেখ করে শামসুজ্জামান খান বলেন, সকালে শিশু সাহিত্য ও নাটক-সাহিত্য এবং বিকালে অনুবাদ সাহিত্য নিয়ে পৃথক ৩টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সন্ধ্যায় ৩০ জন দেশি-বিদেশি কবির কবিতা পাঠের আয়োজন রাখা হয়েছে।

  • সাংস্কৃতিক বার্তা, বিপ্রতীক২৪.কম।
Print Friendly
test